২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ১৪ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

No Bra Day আন্দোলন

আপডেট : সেপ্টেম্বর ৬, ২০২০ ১২:২৪ পূর্বাহ্ণ

156

মাসুদুল হাসান রনি, কানাডা থেকে

বিকেলে ভন্ডুম মেট্রো স্টেশন থেকে শেরব্রুক যাচ্ছি বাসে। হঠাৎ অক্সফোর্ড এভিনিউতে বাস থেমে যায়। বেশ কিছুক্ষন রাস্তা ব্লক থাকায় এদিক ওদিক তাকিয়ে জানার চেস্টা করছিলাম, কি ব্যাপার, ঘটনা কি, রাস্তা ব্লক কেন?

সামনে তাকিয়ে দেখি ,দুরত্ব বজায় রেখে মাস্ক পরিহিত নানান বয়েসি নারীদের শোভাযাত্রা। অনেকের হাতে প্ল্যাকার্ড। প্ল্যাকার্ডে লেখা “say no bra, save your life”. ” Good bye bra, Good bye breast cancer.”

শোভাযাত্রায় অংশগ্রহনকারী নারীদের চেয়ে রাস্তায় পুলিশের সংখ্যা বেশী। কঠোর নিরাপত্তা বলয়ের মধ্য দিয়ে শোভাযাত্রাটি রয়েল এভিনিয় ক্রস করে এগিয়ে যায়।

উইলসন ক্রসিংয়ের পার্কের সামনে শোভাযাত্রাটি শেষ হয় অসংখ্য ব্রা পুড়িয়ে ও গার্বেজ বিনে ফেলে।

বাসে বসে গুগল করে জেনে নেই এ আন্দোলনের ইতিহাস। পশ্চিমা বিশ্বে মহিলাদের স্তন ক্যান্সারের সচেতনতাকে উৎসাহিত করার জন্য ১৩ অক্টোবর No bra বা ব্রা বিহীন দিবস পালিত হয়।

যদিও ২০১১ সালের ৯ই জুলাই প্রথম এ দিবসটি পালিত হয়েছিল। তিন বছরের মধ্যে পশ্চিমা বিশ্বে এ আন্দোলন ব্যাপক জনপ্রিয়তা লাভ করে। তখনই ব্রা বিরোধী আন্দোলনের সাথে স্তন ক্যান্সাররোধে সচেতনতা বৃদ্ধির অংশ জুড়ে দেয়া হয় এবং ১৩ অক্টোবরকে No bra দিবস ঘোষনা করে। প্রতি বছর এ দিবসটি সাড়ম্বরে ১৩ অক্টোবর পালিত হচ্ছে।

স্তন ক্যান্সারের লক্ষণগুলি সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধি এবং লিঙ্গ বৈষম্য দুরীকরনে উৎসাহিত করতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারকারীরা #Nobraday হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করে ।

এ দিবসের সুচনার গোড়াতে কানাডার টরন্টোতে এই ইভেন্টটি একটি মেডিকেল ইভেন্ট হিসেবে ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল । স্তন ক্যান্সার থেকে বেঁচে যাওয়াদের পূর্নবাসনে উৎসাহিত করার জন্য। ১৯ অক্টোবর, ২০১১ সালে প্রথম এই মেডিকেল ইভেন্টটির নাম দেওয়া হয়েছিল বিআরএ (স্তন পুনর্গঠন সচেতনতা) দিবস। আবার অনেকের কাছে দিনটি বিতর্কিত হয়ে পড়েছে। কারণ কেউ কেউ এটিকে একই সঙ্গে একটি মারাত্মক রোগের ঝুঁকির মধ্যে ফেলে নারীর দেহকে যৌনতা ও শোষণ হিসাবে দেখছে।

নো ব্রা’ আন্দোলন নিয়ে ব্যাপকভাবে কাজ করেন দক্ষিন কোরিয়ার জনপ্রিয় অভিনেত্রী সাল্লি। তাঁর হাত ধরেই এটি আন্দোলনে রূপ নেয়। তবে পথচলা খুব একটা সুখকর ছিল না সাল্লির। নিজের বিশ্বাস সবার মধ্যে ছড়িয়ে দেওয়ার কাজ শুরু করার পর থেকেই তাঁকে অপমানের সম্মুখীন হতে হয়। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও তাঁকে ছেড়ে কথা বলেননি নেটিজেনরা।

অকাল প্রয়াত এ অভিনেত্রী বিশ্বাস করতেন ব্রা অথবা অন্তর্বাস পরা মোটেই জরুরি নয়। নিজের বিশ্বাসকে সবার মধ্যে ছড়িয়ে দিতে অভিনয়ের পাশাপাশি নো ব্রা’ আন্দোলনে তাঁর সক্রিয় অংশগ্রহন ছিল। ২০১৯ সালের ১৬ অক্টোবর তাঁর রহস্যজনক মৃত্যু হয়।