৮ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ছাত্রলীগের এক নেত্রীকে হেনস্তা, মধ্যরাতে ইডেন কলেজে বিক্ষোভ

আপডেট : সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২২ ১১:৫১ পূর্বাহ্ণ

49

ভয়েস বাংলা ডেস্ক

সিট বাণিজ্য ও চাঁদাবাজির অভিযোগ করে গণমাধ্যমে বক্তব্য দেওয়ায় সংগঠনের এক নেত্রীর ওপর চটেছেন রাজধানীর ইডেন মহিলা কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি তামান্না জেসমিন ওরফে রীভা ও সাধারণ সম্পাদক রাজিয়া সুলতানা। শনিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) দিবাগত রাতে জান্নাতুল ফেরদৌস নামের ওই নেত্রীকে হেনস্তা ও মারধরের অভিযোগে তামান্না ও রাজিয়ার বহিষ্কারের দাবিতে বিক্ষোভ করেছেন কলেজ শাখা ছাত্রলীগের অন্য পক্ষের নেতা-কর্মীরা।

একপর্যায়ে সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের অনুসারীরাও তাঁদের পক্ষে অবস্থান নিয়ে কলেজ ক্যাম্পাসে মিছিল করেছেন। শনিবার মধ্যরাতে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের বিক্ষোভে ইডেন কলেজ ক্যাম্পাসে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। তবে তাঁদের নিবৃত্ত করতে কলেজ প্রশাসনের কোনো ভূমিকা দেখা যায়নি বলে সাধারণ ছাত্রীরা জানিয়েছেন।

ইডেন কলেজ শাখা ছাত্রলীগের একাধিক নেত্রীর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ২২ সেপ্টেম্বর ইডেন কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের সিট বাণিজ্য, চাঁদাবাজিসহ নানা অপকর্মের বিষয়ে গণমাধ্যমে সাক্ষাৎকার দেন সহসভাপতি জান্নাতুল ফেরদৌস। ওই সাক্ষাৎকার দেখে ক্ষুব্ধ হন তামান্না ও রাজিয়া।

এর জেরে শনিবার রাত ১১টার দিকে তাঁকে কলেজের ছাত্রীনিবাস থেকে বের করে দেওয়ার হুমকি দেন কলেজ শাখার নেত্রী নুজহাত ফারিয়া ওরফে রোকসানা, আয়েশা ইসলাম ওরফে মীম ও কামরুন নাহার ওরফে জ্যোতিসহ তামান্না ও রাজিয়ার কয়েকজন সমর্থক। এ সময় জান্নাতুলকে হেনস্তা ও মারধর করেন তাঁরা। পরে তাঁকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

শনিবার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে ইডেন কলেজ শাখা ছাত্রলীগের এক সহসভাপতি নাম প্রকাশ না করার শর্তে মুঠোফোনে প্রথম আলোকে বলেন, ‘জান্নাতুল ফেরদৌসের হলের কক্ষ তামান্না জেসমিন ও রাজিয়া সুলতানা জোর করে নিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেছেন। একে কেন্দ্র করে জান্নাতুল গণমাধ্যমে কথা বলেছেন। এটি নিয়ে তিনি কেন গণমাধ্যমে কথা বললেন, এটা নিয়ে তামান্না ও রাজিয়া জান্নাতুলকে নির্যাতন করেছেন। এর প্রতিবাদে কলেজের সর্বস্তরের শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ করছেন। তামান্না জেসমিন ও রাজিয়া সুলতানার বহিষ্কার না হওয়া পর্যন্ত বিক্ষোভ চলবে।’

এদিকে ভুক্তভোগী ছাত্রলীগ নেত্রী জান্নাতুল সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘তাঁকে ইডেন কলেজের শহীদ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব ছাত্রীনিবাসের একটি কক্ষে আটকে রেখে নির্যাতন করেছেন তামান্না ও রাজিয়ার অনুসারীরা। এমনকি তাঁর আপত্তিকর ছবিও তুলে রেখেছেন তাঁরা।’

এ বিষয়ে জানতে মুঠোফোনে একাধিক কল করা হলেও সাড়া দেননি ইডেন কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি তামান্না জেসমিন ও সাধারণ সম্পাদক রাজিয়া সুলতানা। চলতি মাসে তাঁদের বিরুদ্ধে কলেজের ছাত্রীনিবাসে সিট বাণিজ্য ও ছাত্রী নির্যাতনের একাধিক অভিযোগের খবর গণমাধ্যমে এসেছে।

রবিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) সকালে বিবদমান দুই পক্ষের বক্তব্য নিয়ে তদন্তসাপেক্ষে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানিয়েছেন বঙ্গমাতা ছাত্রীনিবাসের সুপার নাজমুন নাহার।

সূত্র: প্রথম আলো




স্মৃতি ও স্মরণ

ছবি