২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

হাসি থামাতে না পারায় ৪ ঘণ্টা শুটিং বন্ধ

আপডেট : আগস্ট ১২, ২০২২ ৮:১৫ অপরাহ্ণ

58

ভয়েস বাংলা ডেস্ক

গত ৫ জুন নেটফ্লিক্সে মুক্তির পর ওটিটিতে রীতিমতো ঝড় তুলেছে আলিয়া ভাট অভিনীত ‘ডারলিংস’। মাত্র তিন দিনেই ১০ লাখ ভিউ পূর্ণ হয়েছে, ছবিটির তামিল, তেলেগু রিমেকের ঘোষণাও এসেছে। মুক্তির পর থেকেই ছবির বিষয়বস্তু, অভিনয় আর চিত্রনাট্যের জন্য সমালোচকদের প্রশংসা পেয়েছে ‘ডারলিংস’ নির্মাতারা। ছবির কিছু বিষয় নিয়ে অবশ্য বিতর্কও তৈরি হয়েছে। ডার্ক-কমেডি ঘরানার ছবিটি মুক্তির এক সপ্তাহ পর ‘ডারলিংস’ নিয়ে কথা বললেন পরিচালক জাসমিত কে রিন। তিনি জানালেন ছবির শুটিং নিয়ে একটি মজার তথ্য—অভিনয়শিল্পীরা কেবল হাসি থামাতে না পারায় চার ঘণ্টা বন্ধ ছিল ছবির শুটিং!

ছবিতে মা-মেয়ে শামছুনেছা ও বদরুনেছা চরিত্রে অভিনয় করেছেন শেফালি শাহ ও আলিয়া ভাট। ঘটনা তাঁদের নিয়েই। দুজনেই তাঁদের অভিনয় দক্ষতার জন্য প্রশংসিত। দুজনেরই অভিনয় কৌশল, পর্দায় চরিত্র তুলে ধরার প্রক্রিয়া আলাদা হলেও শেফালি ও আলিয়ার একটি বিষয়ে খুব মিল, সেটা হলো ‘হাসি রোগ’। হাসতে শুরু করলে যেন থামতে ভুলে যান তাঁরা। তাঁদের জন্যই শুটিংয়ে বারবার দেরি হয়েছে।

ই টাইমসকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে জাসমিত বলেন, ‘ছবির একটি দৃশ্যে বাড়িতে পুলিশ আসে। ভেতর থেকে দরজা বন্ধ থাকায় এক নারী কনস্টেবলকে বলা হয় দরজা ভাঙতে। সে দৌড়ে গিয়ে নির্দেশ পালন করে। যা দেখে শেফালি আর আলিয়া হাসি থামাতে পারছিল না। শুটিং শুরুর পর অর্ধেক লাইন বলেই দুজন হাসতে শুরু করে। ওই দিন শুটিংয়ে অনেক দেরি হয়। সেদিন সম্ভবত তিন কি চার ঘণ্টা আগেই শুটিং শেষ করতে পারতাম, কিন্তু তারা হেসেই যাচ্ছিল।’

শুটিং দেরি হলেও পরিচালক মনে করেন, সেটে অভিনয়শিল্পীদের প্রাণবন্ত উপস্থিতি বরং কাজের জন্যই ভালো, ‘তারা সেদিন এত হেসেছে…তারপরও কাজটা শেষ করেছি। অফুরান প্রাণশক্তি যাকে বলে। তারা পুরো কাজের মধ্যে ঢুকে গিয়েছিল।’

সাক্ষাৎকারে জাসমিত আরও জানান শামছুনেছা ও বদরুনেছা চরিত্রে অভিনয়ের জন্য শেফালি ও আলিয়াকে কীভাবে তৈরি করেছেন তিনি, ‘দুজনের আলাদা আলাদা প্রক্রিয়া ছিল। শেফালি চেয়েছিল ছবিতে যে এলাকা দেখানো হয়েছে সেখানকার বাসিন্দাদের সঙ্গে আলাদা আলাদাভাবে দেখা করতে। আমি তাঁর জন্য সে ব্যবস্থা করেছিলাম। আলিয়া দেখা করতে চায়নি, কিন্তু বাসিন্দাদের সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য জানতে চেয়েছে। আগে দুজনেই নিজেদের মতো করে প্রস্তুতি নিয়েছে। তবে সেটে আসার পর তাদের নিজেদের মতো করে কাজ করে দিয়েছে।’

শেফালি শাহ, আলিয়া ভাট ছাড়াও ছবির গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করেছেন বিজয় ভার্মা। এ ছাড়া জনপ্রিয় মালয়ালম অভিনেতা রোশান ম্যাথুকে দ্বিতীয়বারের মতো হিন্দি ছবিতে দেখা গেছে। আলিয়া কেবল অভিনেত্রীই নন, ছবির অন্যতম প্রযোজকও বটে।

সূত্র: প্রথম আলো




স্মৃতি ও স্মরণ

ছবি