২৪শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সু চির বিরুদ্ধে দুর্নীতির আরও ৫ অভিযোগ

আপডেট : জানুয়ারি ১৫, ২০২২ ১:২৪ অপরাহ্ণ

13

ভয়েস বাংলা ডেস্ক

মিয়ানমারের ক্ষমতাচ্যুত নেত্রী অং সান সু চি এবং ক্ষমতাচ্যুত প্রেসিডেন্ট উইন মিন্টকে দুর্নীতির আরও পাঁচটি অভিযোগের মুখোমুখি হতে হবে। গতকাল শুক্রবার সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেছে, নতুন করে ওঠা এসব অভিযোগের প্রতিটির জন্য সু চি ও মিন্টের সর্বোচ্চ ১৫ বছরের কারাদণ্ড হতে পারে।

গণমাধ্যমে কথা বলার অনুমতি নেই জানিয়ে বিচারকাজের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সূত্র রয়টার্সকে বলেছে, ক্ষমতায় থাকার সময় একটি হেলিকপ্টার ভাড়া করাকে কেন্দ্র করে তাঁদের বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ তোলা হয়েছে।

গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে সামরিক অভ্যুত্থানে ক্ষমতাচ্যুত ও বন্দী হন সু চি। এরপর তাঁর বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি মামলা হয়েছে। এর মধ্যে অবৈধভাবে ওয়াকিটকি আমদানি ও নিজের কাছে রাখা এবং করোনাভাইরাস-সংক্রান্ত বিধিনিষেধ লঙ্ঘনের জন্য দোষী সাব্যস্ত হওয়ায় ছয় বছরের কারাদণ্ডে দণ্ডিত হয়েছেন তিনি।

সু চির সমর্থক ও মানবাধিকার গোষ্ঠীগুলো বলছে, সামরিক বাহিনী কর্তৃক ক্ষমতা দখলের বৈধতা দেওয়া ও সু চিকে রাজনীতিতে ফিরে আসা থেকে বিরত রাখার জন্য তাঁর বিরুদ্ধে এসব মামলা দেওয়া হয়েছে; যদিও মিয়ানমারের সামরিক জান্তা সরকার তাদের বিরুদ্ধে ওঠা এমন অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

গতকাল এক সংবাদ সম্মেলনে মিয়ানমার সরকারের মুখপাত্র মেজর জেনারেল জাও মিন তুনের কাছে এ নিয়ে জানতে চাওয়া হয়। তিনি বলেন, ‘কেউই আইনের ঊর্ধ্বে নয়। আমি শুধু এতটুকু বলতে চাই, আইন অনুযায়ী তাঁর (সু চি) বিচার করা হবে।’

সূত্র: প্রথম আলো