২৪শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

জয়নাল হাজারীর মৃত্যু

আপডেট : ডিসেম্বর ২৭, ২০২১ ৭:৩০ অপরাহ্ণ

22

ভয়েস বাংলা ডেস্ক

আলোচিত–সমালোচিত আওয়ামী লীগ নেতা জয়নাল আবেদীন হাজারী মারা গেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। আজ সোমবার বিকেলে রাজধানীর ল্যাবএইড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাঁর মৃত্যু হয়।

ফেনী-২ আসনের সংসদ সদস্য নিজাম উদ্দিন হাজারী তাঁর এলাকার সাবেক সাংসদ জয়নাল হাজারীর মৃত্যুর খবর প্রথম আলোকে নিশ্চিত করেছেন। জয়নাল হাজারী আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য ছিলেন। তাঁর মৃত্যুতে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের শোক জানিয়েছেন।

ল্যাবএইড হাসপাতালের জনসংযোগ কর্মকর্তা প্রথম আলোকে বলেছেন, জয়নাল হাজারী হৃদ্‌যন্ত্র, কিডনি ও ফুসফুস সংক্রমণে ভুগছিলেন। ১৫ ডিসেম্বর তিনি এই হাসপাতালে ভর্তি হন। আজ বিকেল ৫টা ২০ মিনিটে তাঁর মৃত্যু হয়।

জয়নাল হাজারী দীর্ঘদিন ফেনী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। ১৯৮৬, ১৯৯১ ও ১৯৯৬ সালে ফেনী-২ (সদর) আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন তিনি।

১৯৯৬–২০০১ মেয়াদে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকাকালে জয়নাল হাজারী ফেনীতে ‘ত্রাসের রাজত্ব’ কায়েম করেছিলেন। সে সময় ফেনীতে তাঁর নেতৃত্বে ‘স্টিয়ারিং কমিটি’, ‘ক্লাস কমিটি’ গঠনসহ নানা ঘটনায় দেশজুড়ে আলোচনায় ছিলেন তিনি। রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ দমনের পাশাপাশি নিজ দলের বিরোধীদের ওপরও নির্যাতন চালান জয়নাল হাজারী। সে সময় সাংবাদিকেরাও তাঁর নির্যাতন থেকে রেহাই পাননি।

জয়নাল হাজারীর কর্মকাণ্ডে আওয়ামী লীগকেও সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছিল। ২০০১ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ক্ষমতায় আসার পর ওই বছর ১৭ অক্টোবর রাতে ফেনী শহরের মাস্টার পাড়ায় জয়নাল হাজারীর বাসভবনে যৌথ বাহিনীর অভিযান পরিচালিত হয়। সে সময় তিনি পালিয়ে ভারতে চলে যান।

আট বছর দেশের বাইরে থাকার পর ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ আবার ক্ষমতায় ফিরলে দেশে ফেরেন জয়নাল হাজারী। পলাতক থাকা অবস্থায় তাঁকে দল থেকে বহিষ্কার করে আওয়ামী লীগ।

পরে আবার জয়নাল হাজারীকে দলে ফিরিয়ে নেয় আওয়ামী লীগ। ২০১৯ সালে তাঁকে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীতে স্থান দেওয়া হয়।
সূত্রঃ প্রথম আলো