২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ভিআইপি হলেই ছাড় কেন, ফেসবুককে প্রশ্ন

আপডেট : সেপ্টেম্বর ২২, ২০২১ ১১:৫৮ অপরাহ্ণ

83

ভয়েস বাংলা ডেস্ক

গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের পোস্ট করা কনটেন্টের পর্যালোচনা কীভাবে করে ফেসবুক, তা নিয়ে নতুন করে প্রশ্ন উঠেছে। পর্যালোচনার প্রক্রিয়া পরিষ্কার করার আহ্বান জানিয়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমটির স্বাধীন সংস্থা ওভারসাইট বোর্ড।

প্রভাবশালী মার্কিন দৈনিক ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের গত সপ্তাহের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল, গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা ফেসবুকের নিয়ম ভাঙলেও তাঁদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয় না। এতে ক্ষতিকর কনটেন্টের ব্যাপারে ফেসবুকের সিদ্ধান্ত গ্রহণের প্রক্রিয়া নিয়ে প্রশ্ন ওঠে।

ফেসবুকের কনটেন্ট পুনঃপর্যালোচনা প্রক্রিয়াটি প্রতিষ্ঠানটির ভেতরে ‘ক্রস-চেক’ হিসেবে পরিচিত। ফেসবুকের এক মুখপাত্র বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেছেন, আসন্ন দিনগুলোর কোনো এক সময় এই ক্রস-চেক প্রক্রিয়া সম্পর্কে ওভারসাইট বোর্ডকে জানানো হবে।

ওয়াল স্ট্রিটের জার্নালের প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল, ফেসবুকের কিছু অ্যাকাউন্ট ‘সাদা তালিকাভুক্ত’। সাধারণ ব্যবহারকারীদের জন্য ফেসবুকের যে নিয়ম, সেই নিয়ম তাঁদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয়।

ওভারসাইট বোর্ড গতকাল মঙ্গলবার জানায়, এর আগেও ফেসবুকের কাছে ক্রস-চেক প্রক্রিয়া সম্পর্কে জানতে চাওয়া হয়েছিল। তবে ফেসবুক তখন পর্যাপ্ত তথ্য দেয়নি।

গত বছর ওভারসাইট বোর্ড গঠন করে ফেসবুক। বোর্ডটির কাজ হলো ফেসবুকের সমস্যাপূর্ণ কনটেন্টের বিষয়ে স্বাধীন পর্যালোচনা শেষে সিদ্ধান্ত জানানো। চাইলে কোনো ব্যবহারকারী বোর্ডের কাছে আবেদন জানাতে পারেন, আবার বোর্ডও স্বতঃপ্রণোদিত কোনো ব্যাপারে রায় জানাতে পারে।
সূত্রঃ প্রথম আলো




স্মৃতি ও স্মরণ

ছবি