৩রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৮ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সিনেমা-নাটকে ধূমপানের দৃশ্য নিয়ে হাইকোর্টের রুল, তামাক নিয়ন্ত্রণে গুরুত্বপূর্ণ অগ্রগতি, ভয়েস’র বিবৃতি

আপডেট : আগস্ট ১৮, ২০২১ ২:৫২ অপরাহ্ণ

223

ভয়েস বাংলা ডেস্ক

ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার (নিয়ন্ত্রণ) আইনের বিধান অনুসারে সিনেমা-নাটকের দৃশ্যে ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহারের দৃশ্য ধারণ বা প্রদর্শন বন্ধে নিষ্ক্রিয়তা কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে হাইকোর্টের রুল তামাক নিয়ন্ত্রণের ক্ষেত্রে একটি দৃশ্যমাণ বড় অগ্রগতি বলে মনে করে বেসরকারি সংগঠন ভয়েস ফর ইন্টারঅ্যাকটিভ চয়েজ এন্ড এমপাওয়ারমেন্ট-ভয়েস ।

এক বিবৃতিতে ভয়েসের নির্বাহী পরিচালক আহমেদ স্বপন মাহমুদ বলেন, হাইকোর্টের এ রুল তামাক নিয়ন্ত্রণ ও ধূমপান নিরসনে দীর্ঘদিন ধরে কাজ করে যাওয়া সংগঠনগুলোকে উৎসাহিত করবে। ভয়েসের বিবৃতিতে এ সংক্রান্ত রিটের উদ্যোক্তাদের প্রতি ধন্যবাদ জানানো হয় এবং কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করা হয়।

উল্লেখ্য, ১৭ আগস্ট এ বিষয়ক রুল দিয়েছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে ওই আইনের বিধানগুলো বাস্তবায়নে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না, তা–ও জানতে চাওয়া হয়েছে রুলে। বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ  এ রুল দেন।

বাংলাদেশ ক্যানসার সোসাইটি, গ্রামবাংলা উন্নয়ন কমিটি, প্রত্যাশা ও পপুলেশন ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশনের পক্ষে ওই রিটটি করা হয়। আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মনিরুজ্জামান। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল তুষার কান্তি রায়।

২০০৫ সালে ওই আইনটি হয়। এতে ২০১৩ সালে সংশোধনী আনা হয়। আইনের ৫ (ঙ) ধারা অনুসারে, কোনো ব্যক্তি বাংলাদেশে প্রস্তুতকৃত বা লভ্য ও প্রচারিত, বিদেশে প্রস্তুতকৃত কোনো সিনেমা, নাটক বা প্রামাণ্য চিত্রে তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহারের দৃশ্য টেলিভিশন, রেডিও, ইন্টারনেট, মঞ্চ অনুষ্ঠান বা অন্য কোনো গণমাধ্যমে প্রচার, প্রদর্শন বা বর্ণনা করবেন না বা করাবেন না। অথচ ওই বিধানসহ কয়েকটি বিধান মানা হচ্ছে না উল্লেখ গত ফেব্রুয়ারিতে এ রিট মামলাটি করা হয়। স্বাস্থ্যসচিব, আইনসচিব, স্বরাষ্ট্রসচিব, তথ্যসচিব ও বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সেন্সর বোর্ডের চেয়ারম্যানসহ ছয় বিবাদীকে চার সপ্তাহের মধ্যে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে ।




স্মৃতি ও স্মরণ

ছবি