৮ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পাল্লেকেলেতে মনে রাখার মতো দিন বাংলাদেশের

আপডেট : এপ্রিল ২১, ২০২১ ৭:১১ অপরাহ্ণ

517

ভয়েস বাংলা ডেস্ক

মুমিনুল হক সিদ্ধান্তটা ঠিক নিলেন তো! ক্যান্ডির পাল্লেকেলে আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামের সবুজাভ উইকেটে টস জিতে বাংলাদেশ অধিনায়কের ব্যাটিং নেওয়াটা এই প্রশ্নই তুলে দিয়েছিল। ওয়েস্ট ইন্ডিজের জনপ্রিয় ধারাভাষ্যকার ইয়ান বিশপ পর্যন্ত এনিয়ে টুইট করেন। কিন্তু সময়ের সাথে সাথে সেই প্রশ্ন হওয়া। বরং দিন শেষে এমনটা বলাই যায়, মুমিনুল যদি ব্যাটিংটা না নিতেন!

বুধবার পাল্লেকেলেতে দুই ম্যাচ সিরিজের প্রথম টেস্টের প্রথম দিনটা পুরোপুরি নিজেদের করেছে বাংলাদেশ। তামিম ইকবাল, নাজমুল হোসেন শান্তর ব্যাটিংয়ে চূড়ান্ত হতাশার দিন পার করতে হয়েছে স্বাগতিক বোলারদের।

প্রথম দিনে পুরো ৯০ ওভারই খেলা হয়েছে। তাতে মাত্র ২ উইকেট হারিয়ে ৩০২ রান তুলেছে বাংলাদেশ। ক্যারিয়ারের প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরি তুলে নিয়ে নাজমুল হোসেন শান্ত ১২৬ রানে অপরাজিত আছেন। সঙ্গে অধিনায়ক মুমিনুল হক ৬৪ রানে অপরাজিত থেকে দিন শেষ করেছেন।

এদিন বাংলাদেশের একমাত্র হতাশা বলতে তামিম ইকবালের সেঞ্চুরি না পাওয়া। দারুণ খেলতে থাকা তামিম ৯০ রানে আউট হন। আর দিনের শুরুতে সাইফ হাসান শূন্য রানে ফিরেছিলেন। বাকি গল্পটা বাংলাদেশ লিখেছে মনের মতো করে।

প্রথম ও দ্বিতীয় সেশনে মাত্র একটি করে উইকেট পেয়েছে শ্রীলঙ্কা। শেষ সেশনে কোনো উইকেটই পায়নি দলটি।

আসলে উইকেটে দেখতে যেমনই হোক, বোলারদের জন্য ছিল না তেমন কিছু। লঙ্কান বোলাররাও অসাধারণ হতে পারেনি। আর বাংলাদেশ বেরিয়ে আসতে পেরেছে উইকেট ছোড়ে দেওয়ার রোগ থেকে। তাতেই সফরকারীদের জন্য দিনটা হয়ে উঠেছে সোনায় সোহাগা। যেখানে দাঁড়িয়ে বড় স্বপ্ন দেখাই যায়।

সাইফ দ্রুত ফিরে গেলেও তামিম এদিন পুরোনো রূপে হাজির হন। সাবলীল ব্যাটিং করছিলেন। বাজে বল পেলেই সেটিতে উপযুক্ত জবাব দিতে ভুলছিলেন না। তাতে মনে হচ্ছিল যেন ওয়ানডে ধাঁচে ব্যাট করছেন। তামিম পুরো ছন্দে থাকলে যেমনটা মনে হয় আরকি!

৫৩ বলে ফিফটি পূরণ করা তামিমের ব্যাটিং দেখে মনে হচ্ছিল বেশ বড় ইনিংসই আসতে যাচ্ছে তার কাছ থেকে। কিন্তু বিশ্ব ফার্নান্দোর বলে যেভাবে আউট হলেন, সেটা মোটেও তার এদিনের ব্যাটিংয়ের সঙ্গে যায় না। স্লিপে যেন ক্যাচ প্র্যাকটিস করালেন থিরিমান্নেকে। ১০১ বলে ১৫ চারে নিজের ইনিংসটি সাজান তামিম। এদিন তিনি পেয়েছেন টেস্ট ক্যারিয়ারের ২৯তম ফিফটি।

শান্তও ততক্ষণে ফিফটি তুলে নিয়েছেন। তার সঙ্গে যোগ দিয়ে মুমিনুলও নির্ভরতা ছড়ালেন। শান্ত সেঞ্চুরি পূরণের পর পরই মুমিনুল পেয়েছেন টেস্ট ক্যারিয়ারে নিজের ১৪তম ফিফটি। তৃতীয় উইকেটে শান্ত ও মুমিনুলের ব্যাটে এখন পর্যন্ত উঠেছে ঠিক ১৫০ রান।

লঙ্কানদের পক্ষে দিনের দুটি উইকেটই নিয়েছেন বিশ্ব ফার্নান্দো। আর কেউ সাফল্যের মুখ দেখেননি।

সূত্র: দেশ রূপান্তর




স্মৃতি ও স্মরণ

ছবি