৯ই আগস্ট, ২০২০ ইং | ২৫শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

সিঙ্গাপুর থেকে ফিরলেও ঘরে ফেরা হলো না এমদাদের

আপডেট : জুলাই ৩০, ২০২০ ২:৫১ অপরাহ্ণ

7

ভয়েস বাংলা ডেস্ক

সিঙ্গাপুর থেকে দেশে ফিরেছিলেন এমদাদুল হক (২৫)। বিমান বন্দরে নেমে ভাড়া গাড়িতে করে রওনা দিয়েছিলেন বাড়ির পথে, গিয়েছিলেনও অর্ধেকের মতো পথ, কিন্তু শেষ পর্যন্ত তার আর ঘরে ফেরা হলো না, সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন তিনি। শুধু তিনিই নন, তাকে এগিয়ে নিতে আসা তার বাবা ও এক ভগ্নিপতিও প্রাণ হারিয়েছেন এ দুর্ঘটনায়।

বাংলা ট্রিবিউন জানায়, গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কে প্রাইভেটকার নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে এই দুর্ঘটনা ঘটে। এসময় আহত হয়েছেন ড্রাইভারসহ আরও দুই জন। আজ বৃহস্পতিবার (৩০ জুলাই) ভোর পৌনে ৪টার দিকে কাশিয়ানীর রেলওয়ে ফ্লাইওভারের ওপর এই দুর্ঘটনা ঘটে।
ফরিদপুরের ভাঙ্গা হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আতাউর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।
নিহতরা হলেন−খুলনার দিঘলিয়া থানার মোল্লাডাঙ্গা গ্রামের সিঙ্গাপুর প্রবাসী এমদাদুল হক (২৫), তার বাবা জিয়ারুল হক (৫৫) এবং ভগ্নিপতি নড়াইলের কালিয়ার সাজ্জাদ মোল্লা (৩৫)।
আহতরা হলেন খুলনার তেরখাদা থানার কাটেঙ্গা গ্রামের আলামিন (২২) ও ড্রাইভার বাগেরহাট জেলার চিতলমারী উপজেলার পিঁপড়াডাঙ্গা গ্রামের শামীম (২৫)। তাদের মারাত্মক আহত অবস্থায় গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আতাউর রহমান জানান, সিঙ্গাপুর প্রবাসী এমদাদুল তার বাবা জিয়ারুল হক, ভগ্নিপতি সাজ্জাদ মোল্লা, বন্ধু আলামিন একটি প্রাইভেটকার ভাড়া করে রাতে ঢাকা বিমানবন্দর থেকে খুলনায় তাদের বাড়িতে যাচ্ছিলেন। রাস্তায় ভোর রাত পৌনে ৪টার দিকে তাদের বহনকারী প্রাইভেটকারটি গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের রেলওয়ে ফ্লাইওভারের ওপর নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রেলিংয়ের সঙ্গে জোরে ধাক্কা খায়। এতে ঘটনাস্থলেই একই পরিবারের ওই তিন জন নিহত হন এবং অপর দুই জন আহত হন।ওসি আরও জানান, নিহতদের লাশ তাদের স্বজনের কাছে বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *