২রা আগস্ট, ২০২০ ইং | ১৮ই শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

মসজিদে মসজিদে ঈদের জামাতে করোনা থেকে মুক্তি চেয়ে প্রার্থণা

আপডেট : আগস্ট ১, ২০২০ ২:৩৬ অপরাহ্ণ

2

ভয়েস বাংলা ডেস্ক

পবিত্র ঈদুল আজহা আজ। রাজধানীসহ সারা দেশে আজ ঈদুল আজহা উদ্‌যাপিত হচ্ছে। করোনার এই সময়ে যথাযথ ধর্মীয় মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে দেশের মুসলমানরা ঈদ উদযাপন করছে। ঈদুল আজহা উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশবাসীকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। ভয়েস বাংলার পক্ষ থেকেও এর পাঠক, শুভানুধ্যায়ীসহ সবাইকে ঈদের শুভেচ্ছা-ঈদ মোবারক।

করোনার সংক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে আজ শনিবার দেশের মসজিদে মসজিদে লাখো মুসল্লি ঈদুল আজহার নামাজ আদায় করেছেন।

জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে আজ সকাল ৭টায় ঈদের প্রথম জামাত অনুষ্ঠিত হয়। বায়তুল মোকাররমে মোট পাঁচটি ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়। মুসল্লিরা মুখে মাস্ক পরে স্বাস্থ্যবিধি মেনে নামাজ আদায় করেছেন। মসজিদের ভেতর জায়গা না হওয়ায় অনেকে মসজিদের বাইরে ঈদের নামাজ আদায় করেন। সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে নামাজ আদায় করার জন্য কিছুক্ষণ পরপর অনুরোধ জানানো হচ্ছে।
ঈদের নামাজ শেষে করোনা মহামারি থেকে রক্ষা পেতে মহান রাব্বুল আলামিনের দরবারে দোয়া চাওয়া হয়। নামাজ আদায় শেষে মহান আল্লাহর অপার অনুগ্রহ লাভের আশায় ধর্মপ্রাণ মুসলমানেরা সামর্থ্য অনুয়ায়ী পশু কোরবানি করছেন ।

স্বাস্থ্যবিধি মেনে মসজিদে ঈদের নামাজ আদায় করার জন্য অনুরোধ করে ধর্ম মন্ত্রণালয়। এ নিয়ে ১৪ জুলাই ধর্ম মন্ত্রণালয় এক নির্দেশনা জারি করে। সেখানে বলা হয়, ‘চলতি বছর ঈদগাহ বা খোলা জায়গার পরিবর্তে ঈদের নামাজের জামাত কাছের মসজিদে আদায় করার জন্য অনুরোধ করা হলো।’
সর্বোপরি করোনাভাইরাসের মহামারি থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য মহান রাব্বুল আলামিনের দরবারে দোয়া করার জন্য মসজিদের খতিব ও ইমামদের অনুরোধ করে ধর্ম মন্ত্রণালয়।

প্রায় চার হাজার বছর আগে আল্লাহপাকের সন্তুষ্টি লাভের জন্য হজরত ইব্রাহিম (আ.) প্রিয়পুত্র হজরত ইসমাইলকে (আ.) কোরবানি করার উদ্যোগ নিয়েছিলেন। কিন্তু পরম করুণাময়ের অপার কুদরতে হজরত ইসমাইল (আ.)-এর পরিবর্তে একটি দুম্বা কোরবানি হয়ে যায়। হজরত ইব্রাহিম (আ.)-এর ত্যাগের মহিমার কথা স্মরণ করে বিশ্বব্যাপী মুসলিম সম্প্রদায় জিলহজ মাসের ১০ তারিখে আল্লাহপাকের অনুগ্রহ লাভের আশায় পশু কোরবানি করে থাকে। ইসলামি বিধান অনুযায়ী কোরবানীর মাংসের এক তৃতীয়াংশ গরীব দু:খী ও প্রতিবেশীদের মধ্যে, এক তৃতীয়াংশ আত্মীয়-স্বজনদের মধ্যে বন্টন করে দিতে হয়। ত্যাগের মহিমাই হচ্ছে ঈদুল আজহার সবচে’ বড় শিক্ষা।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *