২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৬ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ফেসবুক পোস্টে বাবুল সুপ্রিয় বললেন, ‘চললাম। বিদায়!’

আপডেট : আগস্ট ১, ২০২১ ১২:০৪ পূর্বাহ্ণ

22

ভয়েস বাংলা ডেস্ক

নরেন্দ্র মোদি সরকারের মন্ত্রিত্ব হারানো বাবুল সুপ্রিয় রাজনীতি ছাড়ার ঘোষণা দিয়েছেন। শনিবার এক ফেসবুক পোস্টে এই ঘোষণা দিয়েছেন তিনি। ‘চললাম। বিদায়!’ লিখে বিজেপির রাজনীতির ময়দান ছাড়ার ঘোষণা দিয়েছেন জনপ্রিয় এই সংগীতশিল্পী।

২০১৪ সালের নির্বাচনে জয়ী হয়ে নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে ভারতে বিজেপির যে সরকার গঠিত হয়েছিল, সেখানে ছিলেন বাবুল সুপ্রিয়। সে সময় পশ্চিমবঙ্গে হাতেগোনা যে কয়েকজন জনপ্রিয় ব্যক্তি বিজেপিতে ছিলেন, তাঁদের একজন ছিলেন তিনি। ওই সরকারে বাবুল সুপ্রিয়কে প্রতিমন্ত্রী করেছিলেন নরেন্দ্র মোদি। এরপর ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনেও জয়ী হয়ে মন্ত্রিসভায় নিজের আসন ধরে রাখেন বাবুল সুপ্রিয়। ৮ জুলাই নরেন্দ্র মোদি মন্ত্রিসভায় যে রদবদল এনেছেন, সেখানে বাদ পড়া ব্যক্তিদের তালিকায় রয়েছেন বাবুল সুপ্রিয়।

এর কয়েক দিনের মাথায় বাবুল সুপ্রিয়র রাজনীতি ছাড়ার ঘোষণা নিয়ে পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতি এখন সরগরম। কেউ কেউ বলছেন, মন্ত্রিসভার পুনর্গঠনে ঠাঁই না পাওয়ায় তিনি মনঃকষ্টে রাজনীতি ছাড়ছেন। তবে বাবুল সুপ্রিয় বলেছেন, তিনি আর রাজনীতিতে থাকতে চান না। এবার তিনি মন দেবেন সমাজসেবায়। বাবুল সুপ্রিয় বলেছেন, ‘সাত বছর তো ছিলাম। এবার বিদায়ের পালা।’

তবে তিনি এ কথাও বলেছেন, বিজেপি ছাড়লেও অন্য কোনো দলে যোগ দিচ্ছেন না। তা ছাড়া অন্য কোনো দল তাঁকে যোগদানের জন্য আমন্ত্রণ জানায়নি। ফেসবুক পোস্টে তিনি বলেছেন, ‘আমি আমার মতো করে বলছি। চললাম।’

বাবুল সুপ্রিয় লিখেছেন, ‘আগেই আমি সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছি, আর রাজনীতি নয়, এবার আমি ফিরে যাব। তাই বিদায় রাজনীতি থেকে।’ বলেছেন, ‘বেশ কিছুদিন তো ছিলাম। তাই তো আজ কিছু মন রাখলাম; কিছু মন ভাঙলাম। তবে নিশ্চিত করে বলছি, আমি অন্য কোনো দলে যোগ দিচ্ছি না।’ বাবুল সুপ্রিয় সাংসদ পদ থেকেও পদত্যাগ করবেন বলে শোনা যাচ্ছে। আজ অথবা সোমবার তিনি পদত্যাগপত্র জমা দিতে পারেন।

বাবুল সুপ্রিয় একজন প্রখ্যাত নেপথ্য সংগীতশিল্পী, অভিনেতা, সুরকার ও সংগীত পরিচালক। তাঁর বয়স এখন ৫০ বছর। ২০১৪ সালে তিনি প্রথম বর্ধমানের আসানসোল আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে সাংসদ হন। হন কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী। ২০১৯ সালে আবার তিনি একই আসন থেকে সাংসদ হন। তবে এবারের বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি তাঁকে টালিগঞ্জ আসনে বিধায়ক পদে প্রার্থী করে। সেই নির্বাচনে বাবুল সুপ্রিয় হেরে যান।

এরপর তিনি তাঁর আগের সাংসদ পদ নিয়ে রাজনীতিতে থেকে যান।

৮ জুলাই কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা পুনর্গঠনের সময় বাদ পড়ে যান বাবুল সুপ্রিয়। বাদ পড়েন এই রাজ্যের অপর প্রতিমন্ত্রী দেবশ্রী চৌধুরীও। এর পরিবর্তে বিজেপি কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায় নতুন চারজন প্রতিমন্ত্রীকে অন্তর্ভুক্ত করে। আর এটাই মনেপ্রাণে মেনে নিতে পারেননি বাবুল সুপ্রিয়। তাই তাঁর দল থেকে এই পদত্যাগের সিদ্ধান্ত বলে মনে করছেন এখানকার রাজনীতিবিদেরা।

সূত্র: প্রথম আলো




ছবি