১৪ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৩১শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

পশ্চিমবঙ্গে ৫০ বছরে এত ভোট পায়নি কেউ

আপডেট : মে ৪, ২০২১ ১:৩৬ অপরাহ্ণ

13

ভয়েস বাংলা ডেস্ক

পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃণমূল কংগ্রেস মোট ২১৩টি আসন পেয়েছে। ২০১৬ সালের নির্বাচন থেকে এবার আসন বেড়েছে দুটি। বেড়েছে ভোট পাওয়ার হারও। এবার তৃণমূল প্রায় ৪৮ শতাংশ (৪৭.৯৪%) ভোট পেয়েছে, যা তারা অতীতে কখনো পায়নি। বস্তুত ১৯৭২ সালের পর গত ৫০ বছরে এককভাবে কোনো দল পশ্চিমবঙ্গে এত বেশি ভোট পায়নি।

১৯৭২ সালে ৪৯ শতাংশ ভোট পেয়েছিল কংগ্রেস। আর পশ্চিমবঙ্গে ভোটের ৭০ বছরের ইতিহাসে ভোটপ্রাপ্তির দিক থেকে তৃণমূল এখন দ্বিতীয় স্থানে।

এই প্রসঙ্গে তৃণমূল নেতা ও রাজ্যসভার সাংসদ শুখেন্দুশেখর রায় বলেন, ‘এটা বিরাট তাৎপর্যপূর্ণ একটা ঘটনা। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতাযুদ্ধের মহিমা ও প্রভাবে কংগ্রেস ওই ভোট পেয়েছিল। আর এবারে কেন্দ্রীয় বাহিনীর সঙ্গে যুদ্ধ করে সেই রেকর্ড আমরা ছুঁয়ে ফেললাম।’

বামফ্রন্টের ভোটও ৫০ শতাংশের ওপরে গিয়েছিল, সেটা ছিল তাদের জোটগত হিসাবে, একক দল হিসাবে নয়। সিপিআইএমসহ (কমিউনিস্ট পার্টি অব ইন্ডিয়া মার্ক্সিস্ট) কোনো বাম দল ৪৭ দশমিক ৯৪ শতাংশ ভোটের কাছাকাছিও যায়নি। ১৯৭২ সাল বাদ দিলে গত ৭০ বছরে এককভাবে কোনো দলের এটাই সবচেয়ে বেশি ভোটপ্রাপ্তি।

এবার বিধানসভায় একটা আসনেও জেতেনি বামফ্রন্ট ও কংগ্রেস। তাদের সঙ্গে জোটে থাকা আব্বাস সিদ্দিকীর দল ইন্ডিয়ান সেক্যুলার ফ্রন্ট (আইএসএফ) কেবল একটি আসন পেয়েছে।

বামফ্রন্টের ভোট প্রসঙ্গে সমাজবিজ্ঞানী রণবীর সমাদ্দার বলেন, বাম রাজনীতিতে একটা অদ্ভুত ঘটনা ঘটল। বামফ্রন্টের ভালো ছেলে–মেয়ে ও কর্মীরা তৃণমূলকে ভোট দিলেন আর অপেক্ষাকৃত ক্ষমতালোভী, দুর্নীতিগ্রস্ত অংশটা চলে গেল বিজেপিতে। এটা কয়েক বছর ধরেই হচ্ছে। এই নির্বাচনেও হয়েছে।

রণবীর সমাদ্দারের মতে, ‘গরিবদের, মুসলমানদের কী করে ধরে রাখা যায়, দুর্নীতিগ্রস্তদের সরিয়ে কীভাবে নতুন ছেলেমেয়েকে দলে টানা যায় এবং তাদের কীভাবে প্রার্থী করা যায়—এ নিয়ে যে সামান্য পরীক্ষা-নিরীক্ষা হচ্ছে, তা তৃণমূল কংগ্রেসেই হচ্ছে। তাদেরই এখন প্রকৃত বাম দল বলতে হবে।’

তৃণমূল কংগ্রেস থেকে যারা বেরিয়ে গিয়েছিলেন, তাঁদের মধ্যে শুভেন্দু অধিকারীসহ মোট দুজন জিতেছেন এবারে।

সূত্র: প্রথম আলো




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *