২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৬ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ডিজনির বিরুদ্ধে স্কারলেটের মামলা

আপডেট : জুলাই ৩১, ২০২১ ১:৫৬ অপরাহ্ণ

27

ভয়েস বাংলা ডেস্ক

চুক্তি ভেঙে ব্ল্যাক উইডো অনলাইনে চালানোর অভিযোগে ডিজনির বিরুদ্ধে মামলা করেছেন হলিউড তারকা স্কারলেট ইয়োহানসন। সম্প্রতি মুক্তি পাওয়া এই সুপারহিরো ছবি থেকে করোনাকালে প্রথম সপ্তাহে রেকর্ড পরিমাণ আয় করে প্রতিষ্ঠানটি। দ্বিতীয় সপ্তাহে ছবিটি স্ট্রিমিং করা হয় অনলাইনে। এতে বিপুল পরিমাণ আয় থেকে বঞ্চিত হয়েছেন বলে দাবি করেছেন ব্ল্যাক উইডো ছবির কেন্দ্রীয় চরিত্রের অভিনেত্রী স্কারলেট।

চলমান মহামারির ভেতরও মুক্তির প্রথম সপ্তাহে ব্ল্যাক উইডো আয় করেছে ২১৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। কিন্তু পরের সপ্তাহ থেকে সেই আয় কমতে শুরু করে। স্কারলেটের অভিযোগ, এ কারণে তিনিও প্রাপ্য পারিশ্রমিক থেকে বঞ্চিত হয়েছেন।

কারণ, হলে যত বেশি টিকিট বিক্রি হবে, চুক্তি মোতাবেক সেই হিসেবের ওপর ভিত্তি করেই টাকা পাবেন তিনি। অন্যদিকে বিশ্বখ্যাত চলচ্চিত্র প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ডিজনির দাবি, যা করা হয়েছে, সেটা সম্পূর্ণ চুক্তি মেনেই করা হয়েছে। অভিনেত্রীর অভিযোগ ভিত্তিহীন।

স্কারলেট জানিয়েছেন, ডিজনির মালিকানাধীন মারভেল স্টুডিও তাঁকে কথা দিয়েছিল, ছবিটি কেবল প্রেক্ষাগৃহেই দেখানো হবে। যদিও তিনি অনলাইনে ছবি চালানোর বিপক্ষে নন। তবে অন্তত ৯০ দিন প্রেক্ষাগৃহে চালানোর পরে ডিজনির ওটিটিতে দেওয়া উচিত ছিল।

করোনার কারণে হলিউডের বহু স্টুডিও সিনেমা নির্মাণ বন্ধ রেখেছে, বন্ধ হয়ে গেছে বেশ কিছু স্টুডিও। অন্যদিকে অনেক প্রতিষ্ঠানই ছবি মুক্তি দিয়েছে অনলাইনে। এখন পুনরায় প্রেক্ষাগৃহ খুলতে শুরু করেছে। ডিজনি, ওয়ার্নার ব্রাদার্সের মতো বড় প্রতিষ্ঠানগুলো নিজেদের ছবি প্রেক্ষাগৃহ ও অনলাইন দুই জায়গাতেই মুক্তির কৌশল নিয়েছে।

ব্ল্যাক উইডো প্রেক্ষাগৃহে মুক্তির প্রথম সপ্তাহে উত্তর আমেরিকা থেকে ছবিটি আয় করে ৮০ মিলিয়ন এবং আন্তর্জাতিক বাজার থেকে ৭৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। অন্যদিকে ওটিটি প্ল্যাটফর্ম ডিজনি প্লাস থেকে ছবিটি দেখিয়ে এসেছে ৬০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।

স্কারলেটের ঘনিষ্ঠ সূত্র জানিয়েছে, প্রেক্ষাগৃহে কত টাকার টিকিট বিক্রি হলো, তার ওপর নির্ভর করছে অভিনেত্রী সম্মানীর অঙ্ক। সেই হিসেবে প্রায় ৫০ মিলিয়ন ডলার লোকসান হয়েছে তাঁর।

ডিজনির দাবি, অনলাইনে ছবিটি চললে বরং সেখান থেকেও বাড়তি আয় পেতেন স্কারলেট। এক বিবৃতিতে প্রতিষ্ঠানটি জানায়, মহামারির মধ্যে একটি সিনেমাকে ওটিটিতে চালানোর মতো উদ্যোগের বিরোধিতা করা দুঃখজনক ও পীড়াদায়ক।

সূত্র: প্রথম আলো




ছবি