২২শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ৬ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

কোভিট ১৯ কেড়ে নিল আমার মহামিলনের অনুভূতি

আপডেট : মে ২৫, ২০২০ ৮:৪২ অপরাহ্ণ

378

নীলা তানায

আজ আমার মন খুব খারাপ, আমার মামনি আনিকা কানাডায় একা । আজকে আমাদের এখানে ঈদ, ওর জন্মের পর এই প্রথম আমাকে ছাড়া ঈদ করছে। আমার কাছ থেকে বহুদূরে আটলান্টিকের এক পাড়ে আছে আনিকা, আমার মনের ভিতর কি ঝড় বয়ে যাচ্ছে তা কেবল আমি বুঝতে পারছি। আজকে কারো সাথে কোন কথা বলতে ইচ্ছে করছে না, এখন খুব কান্না করছি ! অনেক কষ্ট, আমার সন্তান ছাড়া আমার কি ঈদ আছে! আমি ঈদের রান্নার প্রস্তুতি নিচ্ছি, ওর পছন্দের সব মেনু রান্না করছি, কিন্তু আমি কিছুই খেতে পারবো না। আমার গলা দিয়ে এই খাবার নামবে না।

ও খুব সুন্দর করে আমার হাতে মেহেদি লাগিয়ে দিতে, আমার আনিকা খুব অভিমানী, ওর চোখের পানি আমি কখনও সহ্য করতে পারতাম না। সাধ্যমতো ওর পছন্দের ঈদের সব কিছু কিনে দিতাম। আজ ও একা কাঁদছে আমি জানি, কিন্তু ও আমাকে বুঝতে দিবে না। আমার ওর সাথে কানাডায় ঈদ করার কথা ছিল, এই মাসের ১৫ তারিখে কানাডাতে আমি পৌঁছাতাম। সেই দিনটার জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছিলাম । আমার বুকের ধনের সাথে মহা মিলনের প্রতিক্ষার মধ্যে শুরু হলো বিশ্বব্যাপী মহামারী করোনা ভাইরাস । সব কিছু লকডাউনের আওতায় চলে এলো । তাই করোনার কারনে যেতে পারলাম না। কিন্তু মায়ের মন তো আর লকডাউনে আটকানো যায় না । আমার মন তো পরে থাকে আটলান্টিকের বিশাল জলরাশি পারি দিয়ে সেই ছোট্ট দ্বীপটিতে যেখানে আছে আনিকা ।

মা ও মেয়ে


সবাই আনিকার জন্য দোয়া করবেন। একদম একা ,ওখানে কোন পরিচিত কেউ নেই যে একটু বেড়াতে যাবে। এই জানুয়ারি ১, ২০২০ এ কানাডায় আনিকা যাওয়ার সময় ঈদের জন্য একটা ইন্ডিয়ান থ্রিপিস কিনে দিয়েছিলাম। ঐটাই আজ ওর ঈদের একমাত্র ড্রেস। আমি আর আমার অনুভূতি প্রকাশ করতে পারছি না, আমার অনেক কান্না আসতেছে । আনিকা তেমন রান্নাও করতে পারে না। ঈদের কোন খাবার খেতে পারবে না আনিকা আমার সোনামনি , মা ,আম্মু আমার,
আল্লাহ তোমার সাথে আছেন ।

লেখক- আইনজীবী।